4 April
13346534_1781861648716306_6526323858210574884_n

ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং সম্পর্কিত কিছু কথা ও কোন বিষয়ের উপর ট্রেনিং করবেন তার কিছু পরামর্শঃ

ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং সম্পর্কিত কিছু কথা ও
কোন বিষয়ের উপর ট্রেনিং করবেন তার কিছু পরামর্শঃ
অনেকেই সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন, কোণ
স্পেশালাইজেশানে ট্রেনিং করবো……
ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কারিকুলামের শিক্ষার্থীদের
জন্য ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং শিক্ষা জীবনের
সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন বিষয়। কারন এখানেই
তারা বাস্তব প্রশিক্ষন গ্রহনের সুযোগ পায়।
ভর্তির সময় টেকনোলজি চয়েজ যতটা গুরুত্বপূর্ণ,
সাড়ে তিন বছর পড়ার পর নিজের স্পেশালাইজেশান
ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানি/ফার্ম সিলেক্ট
করাটা তারচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

এ ব্যাপারে কিছু গুরুত্বপূর্ন টিপস থাকছেঃ
১। শুধু জব মার্কেটের ডিমান্ড নয় বরং আপনার সামর্থ্য ও আগ্রহের বিষয়টাকে গুরুত্ব দিন।ধরুন কম্পিউটার টেকনোলজিতে প্রোগ্রামিং বা নেটওয়ার্কিং বা ওয়েবসাইট ডিজাইন এর ডিমান্ড অনেক বেশী, কিন্তু প্রোগ্রামিং বা নেটওয়ার্কিং বা ওয়েবসাইট ডিজাইন এ ট্রেনিং করে আপনি তাতে প্রোফেশনাল হবার সামর্থ্য বা মেধা রাখেন কিনা সেটা আপনাকে বুঝতে হবে। তাই সাড়ে তিন বছর ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষা থেকে যে বিষয়টি আপনি সবচেয়ে ভালো বুঝতে পারেন সেটাকেই ট্রেনিং এর বিষয় হিসেবে সিলেক্ট করুন।

২। ট্রেনিং এর জন্য যে ট্রেনিং সেন্টার পছন্দ করবেন সেখানে ট্রেনিং এর পাশাপাশি জব অথবা ইন্ট্রানি করা বা বাস্তবসম্তত কাজ করা যায় কিনা সে দিকে খেয়াল রাখবেন । আমার জানা মতে মিরপুর-১ এ “দেওয়ান আইসিটি” নামক প্রতিষ্ঠান এমনটি করে থাকেন।www.dewanict.com

৩। শুধু নিজের ইন্সটিটিউটের শিক্ষক নয়, এ ব্যাপারে যারা জ্ঞান রাখে তাদের ও বিশেষ করে আপনার টেকনোলজির সেইসব বড়ভাই যারা এখন প্রফেশনাল তাদের পরামর্শ নিন,শিক্ষকদের উপর নির্ভর করে ট্রেনিং এ যাবেন না,কারন অনেকেই যে প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বেশি পার্সেন্টেস পাবে সেখানেই পাঠাবে, তাই সৎ ও আদর্শবান শিক্ষকদের পরামর্শ নিন

৪। যারা ডুয়েটে এ্যডমিশান টেস্ট দিবে এবং সেটাকেই প্রায়োরিটি দিচ্ছেন তাদের জন্য ট্রেনিং এর সময়টাতে কোচিং এর উপর ই বেশী গুরুত্ব দেওয়া উচিৎ। এজন্য গাজীপুরের কাছাকাছি কোন নরমাল প্রতিষ্ঠানে জাস্ট ফর্মালিটি মেইন্টেইনের জন্য ট্রেনিং নিতে পারেন। মনে রাখবেন, পূর্ব নলেজ না থাকলে শুধু তিন মাসের ট্রেনিং আপনাকে বিদ্যাসাগর করে দিতে পারবে না,তাই…

৫। ৫ম পর্বে থাকতেই আপনাকে ঠিক করতে হবে আপনি কোন স্পেশালাইজেশানে ট্রেনিং করবেন, আর সেটাকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে আগাতে থাকুন।

৬। ৭ম সেমিস্টারের শুরুতেই কোন ট্রেনিং সেন্টার/কোম্পানীতে ট্রেনিং করবেন তা ঠিক করুন এবং যোগাযোগ সম্পন্ন করুন।

৭। সব স্পেশালাইজশানই ভালো যদি ভালো ভাবে শিখা যায়,কোনটা শিখতে পারবেন সেটায়ই ট্রেনিং করুন। এটা ভালো সেটা ভালো এভাবে না। ধরুন সিভিলের একজন শিক্ষার্থী এতদিন পড়ে বুঝতে পারলো কম্পিউটারেই আসলে তার আগ্রহ বেশী, ডেস্কে বসে কন্সট্রাকশান স্টাইল ডিজাইন আপনার ভালো লাগে , ওকে অটো ক্যাড এ ট্রেনিং করুন, আপনার মাপামাপি হিসেব নিকেশ ভালো লাগে? ভালো সার্ভেয়িং এ ট্রেনিং নেন। মোট কথা অন্যের নয় আপনার নিজের পছন্দ কে গুরুত্ব দিন, আর সাড়ে তিন বছর পড়ার পর অন্তত আপনার পছন্দ টা বুঝতে পেরেছেন।

৮। সাড়ে তিন বছর একই হোস্টেলে থাকার পর আপনার সকল বন্ধুদের সম্পর্কে আপনার একটা ধারনা বা তাদের থেকে অনেক কিছু শিখা হয়েছে। আমার পরামর্শ হল ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং এসে আপনি আলাদা অন্য কোন মেস এ উঠবেন, নতুন কার সাথে মিশবেন। তাহলে আপনি নতুন কিছু শিখতে পারবেন জানতে পারবেন। তাই বলে আবার আগের বন্ধুদের ভুলবেননা কিন্তু।

৯। ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং এর সময় চাকুরি খুজতে থাকবেন ,বড় ভাই অথবা পরিচিত সবাই কে হায় হেলো দিবেন। মনে রাখবেন যোগাযোগ মানুষের জীবন কে অনেক সহজ করে দেয়।

আজ আর নয় আর একদিন লিখবো সবার কাছে দোয়া চেয়ে আজদের মত বিদায়।

Comments

Latest Blog Post

excel-13
October 31, 2017

Good News, we are organizing one day free workshop of Read More

Dewan ICT risit
August 1, 2017

স্কুলজীবন শেষ করেই কত টাকা বেতনের চাকরি প্রত্যাশা করতে পারেন। Read More

host-learningattachment
July 2, 2017

বাংলাদেশ কারিগরী শিক্ষাবোর্ড কতৃক অনুমোদিত দেওয়ান আইসিটি খুব শীঘ্রই শুরু Read More